বাংলাদেশের শীর্ষ ১০ পর্যটন কেন্দ্র

Top 10 tourist place in BD

0
508

বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থান, পাহাড়-পর্বত, সমুদ্র ও নদী ময় বাংলাদেশ প্ৰাকৃতিক বৈচিত্রতার এক অনন্য উদাহরণ। ষড়ঋতুর এই দেশে প্রতিটি এলাকা প্রতি বছর ৬টি ভিন্ন রূপে আবির্ভুত হয়। তাই দেশ ও দেশের বাইরে থেকে প্রতি বছর ভ্রমণ পিপাসু মানুষের ভিড়ে জমজমাট হয়ে ওঠে পর্যটন কেন্দ্রগুলো। RatingsBD এর দৃষ্টিতে বাংলাদেশের শীর্ষ ১০ পর্যটন কেন্দ্র (top 10 tourist place bd)।

১. সেন্ট মার্টিন্‌স দ্বীপ

সেন্ট মার্টিন্‌স দ্বীপ বাংলাদেশের সর্বাধিক জনপ্রিয় পর্যটন স্থান এবং বাংলাদেশের একমাত্র প্রবাল দ্বীপ ( আয়তন ৩৬ বর্গ কিলোমিটার ) । আরব বণিক গণ এই দ্বীপটির নামকরণ করেছিল “জিঞ্জিরা”। ১৮৯০ খ্রিষ্টাব্দের দিকে কিছু বাঙালি এবং রাখাইন সম্প্রদায়ের কিছু মানুষ এই দ্বীপে বসবাস শুরু করে। ১৯০০ খ্রিষ্টাব্দের দিকে ব্রিটিশ ভূ-জরীপ দল এই দ্বীপকে ব্রিটিশ-ভারতের অংশ হিসাবে গ্রহণ করে। জরীপের পর খ্রিষ্টান সাধু মার্টিনের নামানুসারে এটির নামকরণ করা হয় “সেন্ট মার্টিন“। 

২. কক্সবাজার

বাংলাদেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে অবস্থিত সমুদ্র সৈকত। কক্সবাজার তার নৈসর্গিক সৌন্দর্য্যের জন্য বিখ্যাত।কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের দৈর্ঘ্য ১২০ কিলোমিটার। এখানকার অন্যতম বিরল প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য ৯৬ কিলোমিটার পাহাড়ের সারি। এখানে রয়েছে অনেকগুলো দর্শনীয় স্থান গুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো লাবনী বীচ, সুগন্ধা বীচ, কলাতলি বীচ, হিমছড়ি, ইনানী বীচ, মেরিন রোড, রামু বৌদ্ধ বিহার, মহেশখালী, সোনাদিয়া দ্বীপ, কুতুবদিয়া দ্বীপ ইত্যাদি।

৩. সুন্দরবন

সুন্দরবন রিজার্ভ ফরেস্ট, বঙ্গোপসাগর সংলগ্ন, পূর্বে বালেশ্বর নদী এবং পশ্চিমের হরিণবাঙ্গার মধ্যবর্তী বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থিত, বিশ্বের বৃহত্তম ম্যানগ্রোভ বন । মোট আয়তন প্রায় ১০০০০ বর্গ কিলোমিটার। যেখানে বাংলাদেশের মধ্যে রয়েছে ৬০১৭ বর্গ কিলোমিটার। বাঘ, হরিণ, বানর, কুমির, পাখি এবং প্রাকৃতিক সৌন্দর্য দেখার জন্য প্রধান পর্যটন কেন্দ্র “হিরণ পয়েন্ট” এছাড়াও রয়েছে কটকা, টাইগার পয়েন্ট , তিন কোনা আইল্যান্ড , দুবলার চর ইত্যাদি।

৪. পার্বত্য চট্টগ্রাম

পার্বত্য চট্টগ্রাম ভারত এবং মায়ানমার সীমান্তবর্তী দক্ষিণ-পূর্ব বাংলাদেশের চট্টগ্রাম বিভাগের অন্তর্গত একটি অঞ্চল ( আয়তন ১৩২৯৫ বর্গ কি.মি. ) । পার্বত্য চট্টগ্রামের ভ্রমণ স্বর্গ খাগড়াছড়ি এখানকার সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য ভ্রমণের জায়গা হল আলুটিলা পাহাড়। আলুটিলা পাহাড়ের আরেকটি আকর্ষণীয় জায়গা হল, প্রাচীন একটি গুহা। এছাড়াও দেবতার পুকুর , সাজেক , কাসালং আর মাসালং নদী অন্যতম ।

৫. শ্রীমঙ্গল

শ্রীমঙ্গল (চায়ের রাজধানী) বাংলাদেশের উত্তর-পূর্ব প্রান্তে অবস্থিত একটি উপজেলা যা সিলেট বিভাগের মৌলভীবাজার জেলার দক্ষিণ-পশ্চিম প্রান্তের অবস্থিত ( ৪২৫.১৫ বর্গকিলোমিটার )। দর্শনীয় স্থান বাংলাদেশ চা গবেষণা ইনস্টিটিউট, বাংলাদেশ চা বোর্ড প্রকল্প বাস্তবায়ন ইউনিট, ৪০ টি চা বাগান, লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান, নির্মাই শিববাড়ী, বিভিন্ন খাসিয়া পুঞ্জি, হাইল হাওরে বাইক্কা বিল অভয়াশ্রম, সীতেশ বাবুর চিড়িয়াখানা, কাছারী বাড়ী, মসজিদুল আউলিয়া, শ্যামলী পর্যটন, মাধবপুর লেক, রাবার বাগান, ভাড়াউড়া লেক, রাজঘাট লেক , মাগুরছড়া গ্যাসকূপ, পান পুঞ্জি, ওফিং হিল, বার্নিস টিলা, যজ্ঞ কুন্ডের ধারা ইত্যাদি।

৬. রাঙ্গামাটি

রাঙ্গামাটি হল বাংলাদেশের দর্শকদের জন্য পার্বত্য চট্টগ্রামের সর্বাধিক জনপ্রিয় গন্তব্য । এখানকার সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য ভ্রমণের জায়গা হল কাপ্তাই হ্রদ দেশের বৃহত্তম কৃত্রিম হ্রদ, যা ১৯৬০ সালে জলবিদ্যুতের জন্য নির্মিত হয়েছিল। এছাড়াও রয়েছে চাকমা দ্বীপপুঞ্জ, বান বিহার মঠ, ঝুলন্ত ব্রিজ, উপজাতি সাংস্কৃতিক ইনস্টিটিউট যাদুঘর, চাকমা কিংয়ের আধুনিক প্রাসাদ ইত্যাদি।

৭. পাহাড়পুর

হাড়পুরের সোমপুরা মহাবিহার, নওগাঁ জেলা, বদলগাছী উপজেলা বাংলাদেশ ভারতীয় উপমহাদেশের সর্বাধিক পরিচিত বৌদ্ধবিহারগুলির মধ্যে একটি এবং এটি দেশের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ প্রত্নতাত্ত্বিক স্থান। ১৯৮৫ সালে এটি ইউনেস্কোর বিশ্ব ঐহিহ্য স্থান হিসাবে মনোনীত হয়েছিল।

৮. সিলেট

সিলেট জেলাটিকে একটি কুঁড়িতে দুটি পাতার দেশ বলা হয়। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের পাশাপাশি সিলেট জেলা গৌরবময় ইতিহাসের আশ্চর্যরূপে রয়েছে। এই জেলার অসাধারণ চা বাগান দেশি বিদেশী পর্যটকদের হৃদয়ে স্থান পেয়েছে। চা বাগানের পাশাপাশি সিলেটে প্রচুর পর্যটকদের আকর্ষণ রয়েছে যেমন, উদ্যানগুলি রাত্রাগুল জলের হ্রদ, হাকালুকি এস্টেট, লালাখাল, ভোলাগঞ্জ, তামাবিল, বিছনাকান্দি এবং জাফলং ইত্যাদি বিভিন্ন অঞ্চলে আদিবাসীদের বিভিন্ন ভাষা ও সংস্কৃতি রয়েছে। । মণিপুরীর নৃত্য মণিপুরীর আদিবাসী সম্প্রদায়গুলিতে বিখ্যাত। প্রকৃতির খাঁটি সৌন্দর্য, বিচিত্র সংস্কৃতি, চা বাগান এবং আরও অনেক রিসর্টের কারণে এটি সিলেটের অন্যতম সেরা পর্যটন শহর হতে পারে।

৯. কুয়াকাটা

স্থানীয়ভাবে সাগর কন্যা (সমুদ্রের কন্যা) নামে পরিচিত এটি বাংলাদেশের দক্ষিণ দিকের একটি বিরল মনোরম সৌন্দর্যের জায়গা। কুয়াকাটা পটুয়াখালী জেলার কলাপাড়া থানাধীন ৩০ কি.মি. দৈর্ঘ্য এবং ৬ কি.মি. প্রস্থের জলসমুদ্র। কুয়াকাটায় মনোরম প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের সুন্দর সমাহার, বালুকাময় সৈকত, নীল আকাশ, উপসাগরের জলের বিশাল বিস্তৃতি এবং চিরসবুজ বনের সত্যই আকর্ষণীয়।

১০. মসজিদ শহর বাগেরহাট

ষাট গম্বুজ মসজিদ বাংলাদেশের তিনটি বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থানের একটি। এটি বাংলাদেশের খুলনা বিভাগের বাগেরহাট জেলায় অবস্থিত পঞ্চদশ শতকের একটি ইসলামিক নিদর্শন।

তথ্যসূত্র : (top 10 tourist place bd)

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here

3 × four =